মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

তাজুল ইসলাম

 

বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা। স্বাধীনতা যুদ্ধে তার সাহসিকতার জন্য বাংলাদেশ সরকার তাকে বীর প্রতীক খেতাব প্রদান করে।

জন্ম ও শিক্ষাজীবন

তাজুল ইসলামের জন্ম চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি উপজেলার বাগানবাজার ইউনিয়নের গার্ডপাড়া গ্রামে। তিনি অবিবাহিত ছিলেন। তাঁর বাবার নাম নাদেরুজ্জামান।

কর্মজীবন

তাজুল ইসলাম চাকরি করতেন পাকিস্তান সেনাবাহিনীতে। ১৯৭১ সালে কর্মরত ছিলেন দ্বিতীয় ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টে। তখন তাঁর পদবি ছিল নায়েক। মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে ঝাঁপিয়ে পড়েন যুদ্ধে। প্রতিরোধযুদ্ধ শেষে ভারতে পুনর্গঠিত হয়ে প্রথমে ৩ নম্বর সেক্টরে, পরে এস ফোর্সের অধীনে যুদ্ধ করেন।

মুক্তিযুদ্ধে ভূমিকা

ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে আখাউড়ার ওপর দিয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম-সিলেটের রেল যোগাযোগ। খুব কাছেই ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের রাজধানী আগরতলা। ১৯৭১ সালে সামরিক দিক থেকে আখাউড়া ছিল খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এখানে ছিল পাকিস্তান সেনাবাহিনীর দুর্ভেদ্য এক ঘাঁটি। মুক্তিযুদ্ধের চূড়ান্ত পর্যায়ে আখাউড়ায় ৩০ নভেম্বর থেকে ৫ ডিসেম্বর ভয়াবহ যুদ্ধ হয়। এই যুদ্ধে মুক্তিবাহিনীর একটি দলে ছিলেন তাজুল ইসলাম। ৩ ডিসেম্বর তাঁরা আক্রমণ চালান আখাউড়ার পার্শ্ববর্তী আজমপুর রেলস্টেশনে। তখন সেখানে রক্তক্ষয়ী এক যুদ্ধ সংঘটিত হয়। এই যুদ্ধে তাজুল ইসলাম ও তাঁর সহযোদ্ধারা যথেষ্ট সাহস ও বীরত্ব প্রদর্শন করেন। তাঁদের সাহসিকতায় মুক্ত হয় আজমপুর রেলস্টেশন। পাকিস্তানি সেনারা পালিয়ে যায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়। সেদিন রক্তক্ষয়ী ওই যুদ্ধে তাঁদের বি কোম্পানির অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট ইবনে ফজল বদিউজ্জামানসহ আট-নয়জন সহযোদ্ধা শহীদ এবং ২০ জন আহত হন। পাকিস্তান সেনাবাহিনীর ২২ জন হতাহত হয়। আখাউড়ার পতনের পর তাজুল ইসলাম তাঁর দলের সঙ্গে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় যান। সেখানে কয়েক দিন অবস্থানের পর নরসিংদী হয়ে ঢাকা অভিমুখে রওনা হন। পথে বিভিন্ন স্থানে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর সঙ্গে তাঁদের ছোটখাটো সংঘর্ষ হয়। ১৬ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় তাঁরা মেজর মইনুল হোসেন চৌধুরীর নেতৃত্বে ঢাকায় পৌঁছান। ১৯৭২ সালের জানুয়ারি মাসে তাজুল ইসলামের দলের অবস্থান ছিল ঢাকার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে । সেখানে অবস্থানকালে তাঁদের দলের ওপর ২৯ জানুয়ারি নির্দেশ আসে মিরপুরে অভিযান চালানোর। মিরপুর তখনো বিহারিদের দখলে ছিল। এই অভিযানে গিয়ে তাজুল ইসলামসহ তাঁর সহযোদ্ধা অনেকে বিহারিদের পাল্টা আক্রমণে শহীদ হন।